You are currently viewing এসইও কি

এসইও কি

এসইও এর পূর্ণরূপ হচ্ছে “সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন”। আমরা যখন গুগলের সার্চ বারে কোন কিছু লিখে সার্চ করি, তখন আমরা গুগল এর সার্চ পেজে অনেকগুলো রেজাল্ট দেখতে পাই এবং আমরা আমাদের কাঙ্খিত লিংকে ক্লিক করে বিভিন্ন ওয়েবসাইট ভিজিট করে থাকি।  এখন বিষয়টি হলো অনলাইনে এতো কনটেন্ট এর মধ্যে থেকে কিভাবে এরা গুগল সার্চ এর প্রথম পেজে র‍্যাঙ্ক করলো বা স্থান করে নিলো? 

তো ব্যাপারটি কি দাঁড়ালো? এসইও হচ্ছে সেই সকল টার্মস এন্ড কন্ডিশন যেগুলো পূরণ করলে গুগলে আপনার ওয়েবসাইটকে গুগল সার্চ পেজে দৃশ্যমান হওয়ার সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দেয়। 

ভূমিকা

ডিজিটাল মার্কেটিং ইন্ডাস্ট্রিতে এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন অতীব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। কারণ যে ওয়েবসাইটগুলো অর্গানিকালি র‍্যাঙ্ক করে থাকে সেই ওয়েবসাইটগুলো অনেক অনেক ভিজিটর পেয়ে থাকে। অনলাইনে সবার একটাই লক্ষ্য থাকে ওয়েবসাইট এর ভিজিটর বাড়ানো। সেক্ষেত্রে প্রত্যেক ওয়েবসাইটে  কোয়ালিটি কনটেন্ট এবং ভালো একটা এসইও স্ট্রাটেজি আপনার ওয়েবসাইটকে র‍্যাঙ্কিং করবে তেমনি ওয়েবসাইটে ভিজিটর এর পরিমাণ বহুগুণে বাড়িয়ে দেবে।

এসইও কেন গুরুত্বপূর্ণ

বর্তমান প্রতিযোগিতামূলক বাজারে এসইও মার্কেটিং আগের চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সার্চ ইঞ্জিনগুলি প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ ব্যবহারকারীদের তাদের প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে বা তাদের সমস্যার সমাধানের জন্য বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে তথ্য প্রদর্শন করে থাকে। যে যত ভালো কনটেন্ট র‍্যাঙ্ক করতে পারবেন সে তো বেশি ভিজিটর পাবেন।

এসইও এর আবশ্যকতা আরো ভালোভাবে বুঝতে চাইলে নিচের পয়েন্টগুলো ভালো করে পড়ুন- 

  • সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৭০ ভাগ ব্যাবহারকারীই গুগল এ শীর্ষে থাকা প্রথম 5 টি ওয়েবসাইট  মধ্যে থাকা যেকোনো একটিতে ক্লিক করে থাকে।
  • এসইও মানে শুধুমাত্র সার্চ ইঞ্জিনে অপ্টিমাইজেশান নয় বরং একটি ওয়েবসাইটকে ভালোভাবে এসইও করলে ওই ওয়েবসাইটের ভিজিটরদের ইউজার এক্সপেরিয়েন্স ও ইউজাবিলিটি ভালো হয়ে থাকে।   
  • গুগলে কোনো কীওয়ার্ড সার্চ করা হলে যে সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্ট পেজে যে ওয়েবসাইটগুলো টপ পজিশনে থাকে সেই ওয়েবসাইটগুলোকেই  সবাই বেশি বিশ্বাস করে থাকে। 
  • এসইও এর মাধ্যমে সোশ্যাল প্রেজেন্স ইনশিউর করা যায়।
  • অনেক বড় ওয়েবসাইটও স্মুথলি রান করতে চাইলে এসইও এর বিকল্প নেই। অরগ্র্যানিক ট্রাফিক বৃদ্ধি করতে প্রত্যেক ওয়েবসাইট এর এসইও এর চেকলিস্ট ফলো করে কাজ করা হয়ে থাকে।
  • অনলাইন প্রতিযোগিতায় এসইও আপনাকে অন্যদের চেয়ে অনেক এগিয়ে রাখবে।

এসইও কিভাবে সম্পন্ন করা হয়ে থাকে?

এসইও প্রধানত ৫টি ধাপে করা হয়ে থাকে। যথা-

  • কীওয়ার্ড রিসার্চ 
  • কনটেন্ট জেনারেশন 
  • অন-পেজ এসইও 
  • অফ-পেজ এসইও 
  • মেজারমেন্ট

কতভাবে একটি ওয়েবসাইটকে এসইও করা যায়?

একটি ওয়েবসাইটকে মূলত গুগলের সার্চ পেজ টপ পজিশনে র‍্যাঙ্ক করতে চাইলে বিভিন্নভাবে এসইও এর বিভিন্ন  স্ট্রাটেজি টার্গেট করে কাজ করা হয়ে থাকে। যেমন-

  • টেকনিক্যাল এসইও
  • অন-পেজ এসইও
  • অফ-পেজ এসইও
  • কন্টেন্ট এসইও
  • লোকাল এসইও
  • মোবাইল এসইও
  • ই-কমার্স এসইও 

কেন এসইও শিখবেন?

এসইও একটি ইন্ডাস্ট্রি এভারগ্রিন। ফ্রীল্যান্সার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চান অথবা লোকাল মার্কেট জব করতে চান দুই ক্ষেত্রেই এসইও আপনাকে ভালো একটি ক্যারিয়ার গড়তে সাহায্য করবে। এমনকি আপনি যদি এসইও শিখে নিজের বিজনেস ডেভেলপমেন্ট করতে চান সেটাও পারবেন। 

অনলাইন মার্কেটপ্লেসে এসইও এক্সপার্টদের ডিমান্ড এবং চাহিদা সবসময়ই বেশি। মানুষ কোনো কিছু অনলাইনে কিনতে চাইলে বেশিরভাগ সময় তাদের মধ্যে ৯০ শতাংশ মানুষ গুগলেই সার্চ করে থাকে। তাই গ্লোবালি ব্যবসা প্রসারণের লক্ষে সবাই এসইও ইন্ডাস্ট্রিতে ইনভেস্ট করে চলেছে। তাই দিন দিন এসইও ইন্ডাস্ট্রিতে এক্সপার্টদের চাহিদা বেড়েই চলেছে।

এসইও ক্যারিয়ার ও স্যালারী

গ্লাসডোর এর তথ্য মোতাবেক আমেরিকাতে গড়ে প্রতিবছর একজন এসইও এক্সপার্টকে $৭৮,৯২৮ ডলার বেতন প্রদান করে থাকেন। আর মার্কেটপ্লেস যেমন আপওয়ার্ক এর কথা যদি বলি তাহলে এখানে প্রায় দশ পনেরো হাজার এর মতো জব রেগুলার পোস্ট আছে। এছাড়াও ফাইবার, টপটাল, গুরু, পিপল অপর হাওয়ার এর মার্কেটপ্লেসেও অনেক কাজ চলমান রয়েছে। 

আপওয়ার্ক মার্কেটপ্লেসে একজন এসইও স্পেশালিস্ট গড়ে প্রতি ঘন্টা হিসেবে ৩৫$ রেট নিয়ে কাজ করে থাকেন, বাংলাদেশ টাকায় ৩৫০০/- টাকা। 

উপসংহার:

ভালো একটি ক্যারিয়ার গড়া সবারই স্বপ্ন এবং আপনি চাইলেই ওপেন সোর্স থেকে অনেক কিছু শিখতে পারবেন। কিন্তু আমরা চেষ্টা করছি ক্যারিয়ার ফোকাস করে সবাইকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য। ইন্টারনেট দুনিয়া এখন হাতের মুঠোয়, ক্যারিয়ার গড়ার ক্ষেত্রে অবশ্যই নিজের ভালো লাগা এবং ইন্টারেস্টকে কাজে লাগিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যান।

Leave a Reply