You are currently viewing কিভাবে গুগলে র‍্যাঙ্ক করবেন? এসইও প্রো টিপস

কিভাবে গুগলে র‍্যাঙ্ক করবেন? এসইও প্রো টিপস

আপনার ক্রমাগত প্রচেষ্টা স্বত্তেও গুগলে আপনার ওয়েবসাইটকে র‌্যাঙ্ক  করাতে পারছেন না এবং বিষয়টি খুব হতাশাজনক। ইন্টারনেটে প্রচুর রিসোর্স থাকা স্বত্তেও গুগল কিভাবে র‌্যাঙ্কিং করবেন এর সদুত্তর পাওয়া বেশ কঠিন। গুগলের যে র‌্যাঙ্কিং ফ্যাক্টরগুলি আছে সেগুলোই একমাত্র সমাধানের পথ নয়, ওয়েবসাইট র‌্যাঙ্কিং  ক্ষেত্রে এর বাইরেও অনেক এলগরিদম আছেওয়েবসাইট র‌্যাঙ্কিং করার জন্য নিচের চেকলিষ্ট স্টেপ বাই স্টেপ ফলো করুন।

রিলেভেন্ট কীওয়ার্ড নির্বাচন করুন

সার্চ ইঞ্জিনে ওয়েবসাইট র‌্যাঙ্ক করার লক্ষ্য প্রতিটি মার্কেটারের স্বপ্ন। কিন্তু, কাজটি সম্পন্ন করতে, আমাদের অনেক প্রচেষ্টার প্রয়োজন। যাইহোক, সঠিক কীওয়ার্ড বাছাই করা এবং নির্দিষ্ট দর্শকদের টার্গেট করা আপনার ওয়েবসাইট র‌্যাঙ্কিং করার প্রধান টিপস। সেই সাথে, ভাল ভাবে অপ্টিমাইজ করা কনটেন্ট তৈরি করলে আপনার ওয়েবসাইটকে র‌্যাঙ্কিংকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার গতি ত্বরান্বিত করবে ।

আপনার ওয়েবসাইটটি আপনার ধারণার চেয়ে অনেক তাড়াতাড়ি র‌্যাঙ্কিং করতে পারে, শুধুমাত্র যদি আপনি নীচে উল্লিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করেন:

  • প্রথমে আপনার বিষয়ের সাথে প্রাসঙ্গিক কীওয়ার্ডগুলির একটি তালিকা তৈরি করুন।
  • আপনার প্রতিযোগীরা যে কীওয়ার্ডগুলির জন্য র‌্যাঙ্কিং করছে তার একটি তালিকা তৈরী করুন।  
  • কমিটিশন কম এবং বেশি সার্চ ভলিউম সহ কীওয়ার্ড বাছাই করতে গুগলের কীওয়ার্ড প্ল্যানারের মতো টুলসগুলো ব্যবহার করুন। 
  • আইডিয়াগুলোকে একটু ব্রেইনস্টর্মিং করতে শিখুন এবং ল্যাটেন্ট সিমেন্টিক ইনডেক্স (LSI) কীওয়ার্ডগুলো শনাক্ত করুন। 
  • বিভিন্ন কম্যুউনিটিতে যুক্ত হন (যেমন Reddit, Quora) ইত্যাদি, যেখানে দর্শকরা নির্দিষ্ট বিষয়ে প্রশ্ন করে এবং সে বিষয় সম্পর্কে জানতে চায়।
  • এসইও ইন্ডাস্ট্রির সাথে সব সময়  লেগে থাকুন এবং লেটেস্ট আপডেটগুলো জানুন। এটি আপনাকে নতুন নতুন জার্গন এবং নতুন নতুন কোয়েরি সম্পর্কে ধারণা দিবে।

কোয়ালিটি সম্পন্ন কনটেন্ট তৈরি করুন

প্রথমেই আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারেন ভালো মানের কনটেন্ট কি? সহজ কথায় যদি আমরা বলি তাহলে বলবো-

কোয়ালিটি কনটেন্ট মার্কেটিং এর প্রতিটি লক্ষ্য পূরণ করে

  1. ব্র্যান্ড এওয়ার্নেস, CTR, কোয়ালিটি লিড এবং সোশ্যাল মিডিয়াতে আস্থা অর্জন করে
  2. কনটেন্ট মার্কেটিং ইনস্টিটিউট এর তথ্য মোতাবেক বড় কোম্পানিগুলোর মধ্যে ৮৮% কনটেন্ট মার্কেটিং কে অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে।
  3. কনটেন্ট মার্কেটিং এ সাধারণত বিভিন্ন ব্লগপোস্ট, নিউজলেটার, ওয়েবিনার, ভিডিও ইত্যাদি বিষয়গুলো জড়িত থাকে।
  4. ভালো মানের কনটেন্ট তৈরি করার সময় নিচে কিছু দরকারী টিপস তালিকাভুক্ত করেছি:
  5. আপনার নির্বাচিত কীওয়ার্ড নিয়ে গবেষণা করুন
  6. ব্যবহারকারীদের প্রয়োজনীয়তা পূরণ করে এমন কনটেন্ট তৈরি করুন
  7. আপনার অডিয়েন্স এর কাছে আপনার কনটেন্ট সহজভাবে উপস্থাপন করুন
  8. কনটেন্ট উপস্থাপনার ধারাবাহিকতা মেনে চলুন
  9. কনটেন্ট এর প্রতি বিশ্বাস বাড়াতে আপনার পোস্টে বা ব্লগে রেফারেন্স প্রদান করুন
  10. সব সময় হোয়াইট হ্যাট এসইও এর নিয়ম মেনে চলুন কারণ এটি র‌্যাঙ্কিংয়ে সহায়তা করে

নোট: হোয়াইট হ্যাট এসইও গুগলে আপনার র‌্যাঙ্কি করতে সার্চ ইঞ্জিনের সকল নিয়ম ও নীতি অনুসরণ করে, ফলে ওয়েবসাইট পেনাল্টি খাওয়ার কোনো সম্ভাবনা থাকে না।

  • কনটেন্ট কে সাবলীল ও ভিন্নভাবে প্রেজেনটেশন করুন, যাতে অডিয়েন্স এর মনোযোগ ঠিক থাকে। এর জন্য আপনি নীচে প্রদত্ত অনুশীলন গুলো করতে পারেন।
  • আপনার ব্লগ পোস্টে ইনফোগ্রাফিক যুক্ত করুন
  • আপনার পোস্টে ভিডিও এবং ছবি অন্তর্ভুক্ত করুন
  • আপনার বিষয়বস্তু পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যালোচনা করুন

এক্ষেত্রে মাথায় রাখবেন, গুগল যখন বুঝতে পারবে একজন পাঠক আপনার ওয়েবসাইটে দীর্ঘ সময়ের ধরে আপনার ওয়েবসাইটে সময় কাটাচ্ছে তাহলে গুগল আপনার ওয়েবসাইটকে অটো র‌্যাঙ্ক করাবে। তাই ব্যবহারকারীর মনোযোগ বাড়াতে দীর্ঘ এবং আকর্ষণীয় কনটেন্ট তৈরি করুন।

ভালো মানের কনটেন্ট তৈরি করার নিচের ধাপগুলো মাথায় রেখে করুন:

  1. প্রত্যেকটি কনটেন্ট কে একটি ভালো ভূমিকা দিয়ে শুরু করুন
  2. কনটেন্ট লেখার সময় নির্বাচিত কীওয়ার্ডের সাথে প্রাসঙ্গিকতা রেখে কনটেন্ট লিখুন
  3. আপনার কনটেন্টে আকর্ষণীয় একটি শিরোনাম দিন এবং আপনার কনটেন্টে LSI কীওয়ার্ড অন্তর্ভুক্ত করুন
  4. হেডিং এবং সাব-হেডিং এ  কীওয়ার্ড এর ভেরিয়েন্ট তৈরী করুন
  5. কনটেন্টে আপনার বাক্য এবং অনুচ্ছেদ ছোট রাখুন
  6. নির্দির্ষ্ট পয়েন্ট থাকলে সেগুলোকে বুলেট পয়েন্টে উপস্থাপন করুন
  7. ইন্টারনাল লিঙ্ক ইন্সার্ট করুন
  8. কনটেন্ট ইমেজ ব্যবহার করলে অবশ্যই অল্টার ট্যাগ ব্যবহার করুন
  9. কনটেন্ট এর মধ্যে ইউজার কলআউট বা অ্যাকশন নিতে পারে এমন কথা অন্তর্ভুক্ত করুন
  10. আপনার বিষয়বস্তু নিয়মিত আপডেট করুন

বিল গেটস ১৯৯৬ সালে বলেছিলেন “কনটেন্ট ইজ কিং” এবং অনলাইনে আমরা যা কিছু দেখি তা সবই কনটেন্ট।  আপনি যদি কোয়ালিটি কনটেন্ট প্রোভাইড করতে পারেন এবং যদি সেটা গ্রাহকের চাহিদা পূরণ করে তাহলে গুগলে আপনি অবশ্যই র‍্যাঙ্ক করতে পারবেন।

চলবে…

Leave a Reply