You are currently viewing কভার লেটার কি? কিভাবে কভার লেটার লিখতে হয়?
African american applicant holding curriculum vitae at interview, black unemployed job seeker giving hr cv at hiring negotiations, employment and recruiting concept, focus on resume, close up view

কভার লেটার কি?

ফ্রীলান্সিং জগতে কভার লেটার কথাটা যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি লিখাটাও বেশ গুরুত্বপূর্ণ। মার্কেটপ্লেসে কাজ পেতে চাইলে একটি জব পোস্ট এর বিপরীতে ক্লায়েন্ট বরাবর যে আবেদন করা হয় সেটাকেই মূলত কভার লেটার বলা হয়ে থাকে। বলা হয়ে থাকে একটি সুন্দর কভার লেটার একটি জব পাওয়ার মূল অস্ত্র। সেক্ষেত্রে একটি উইনিং কভার লেটার কিভাবে লিখতে হয়ে তা নিয়ে আজ বিস্তারিত তুলে ধরবো।  

ভালো একটি কভার লেটার ভালো একটি সুযোগ তৈরি করতে পারে। জব বা চাকুরী যেটাই বলেন সেটা অনলাইন হোক বা অফলাইন হোক সব জায়গাতেই নিয়োগদাতাকে প্রভাবিত করতে পারে। চাকুরী পাওয়ার জন্য আপনার ব্যাক্তিত্ব, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার যেমন প্রয়োজন পরে তেমনি নিয়োগদাতার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাইলে অবশ্যই ভালো একটি কভার লেটার এর প্রয়োজন পড়বে।    

কিভাবে একটি ভালো কভার লেটার লিখতে হয়?

সবার মনে প্রশ্ন আসতে পারে কিভাবে একটি ভালো কভার লেটার লিখতে হয়। স্বাভাবিকভাবেই প্রকৃত তথ্য দিয়েই আপনার কভার লেটার সাজানো উচিত আর ভুলেও অতিরঞ্জিত করতে যাবেন না। ডিটেলস লিখতে গেলে আপনি হয়তো কিছুটা জটিলতার মধ্যে পড়বেন, সেক্ষেত্রে নিচের স্টেপগুলো ফলো করে আপনি ভালো একটি কভার লেটার তৈরি করতে পারবেন। 

একটি উষ্ণ অভ্যৰ্থনা দিয়ে শুরু করুন:

যখন আপনি কোনো পেশায় যুক্ত হতে চাইবেন সেখানে অবশ্যই আপনি আপনার পেশাদারিত্বের নমুনা পেশ করবেন। তাই কভার লেটার এর শুরুতে একটি উষ্ণ অভ্যৰ্থনা বা পেশাদার অভিবাদন আপনার নিয়োগকর্তার দৃষ্টি আকর্ষণ করবে এমন কিছু দিয়ে শুরু করুন। যেমন-

“Dear James” বা “Dear Mr. James” অথবা “Mr. James” এভাবে শুরু করতে পারেন। আবার একটু ভিন্নভাবে যদি দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চান তাহলে “Hello James” “Hello Mr. James” অথবা Hi দিয়ে শুরু করতে পারেন। আবার প্রসঙ্গ চেঞ্জ করেও আপনি নিয়োগকর্তার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারেন। যেমন- Hey James, How is going on বা Whats up James এভাবেও শুরু করতে পারেন। যদি আপনি নিয়োগকর্তার নাম না জানেন তাহলে “Dear Hirign Manager” লিখে শুরু করতে পারেন।

মেইন পয়েন্টে কথা বলুন:

বিষয়টি এমনভাবে বোঝার চেষ্টা করুন যে আপনি আপনার সম্পর্কে উপন্যাস লিখতে বসেন নি। নিয়োগকর্তাকে আপনি জানান যে আপনি কেন তাদের সাথে যোগাযোগ করছেন, আপনার কোন কোন দক্ষতা আছে যা আপনাকে এই পদের জন্য উপযুক্ত ব্যক্তি হিসেবে গণ্য করতে পারে এবং আরো তুলে ধরুন তারা কোথায় কোথায় আপনার কাজের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে আরও সুস্পষ্ট তথ্য পেতে পারে। যেমন-

আমি সম্প্রতি আপনাদের প্রকাশিত লিড ম্যানেজার পদে কাজ করতে আগ্রহী। আমি বিগত ৫ বছর যাবৎ গ্রামীণ ফোন কোম্পানিতে এরিয়া ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছি। সেই সাথে উক্ত পদে আমি ম্যানেজার হিসেবে একটি দল পরিচালনা করে আসছি। নিচের লিংক এ আপনি আমাদের ফুল টীম চাইলে দেখতে পারেন।

দক্ষতাগুলোকে হাইলাইট করুন-

বেশিরভাগ জব পোস্টিংগুলোতে কাঙ্খিত প্রার্থীর দক্ষতার ধরন সম্পর্কে খুব স্পষ্ট ইঙ্গিত দেবে। আপনার যদি সেই দক্ষতাগুলি থাকে, তাহলে আপনার সেগুলি উল্লেখ করা উচিত। শুধু তাই নয় সেগুলি পুনরাবৃত্তি করে আপনি কিভাবে তাদের চাহিদা পূরণ করতে পারবে সে সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা দিলে তারা এমনিতেই বুঝতে পারবেন যে আপনি এই কাজের জন্য উপযুক্ত ব্যাক্তি।

ধরুন আপনি একটি ক্রিয়েটিভ রাইটার পোস্টে জব এর জন্য আবেদন করবেন যার পত্রিকায় লেখালেখি করার অভিজ্ঞতা আছে। সেক্ষেত্রে আপনি এমনভাবে নিজেকে উপস্থাপন করতে পারেন যে-

আপনি ইংরেজিতে অনার্স মাস্টার্স করেছেন। স্থানীয় পত্রিকায় আপনি অ্যাসিস্ট্যান্ট এডিটর হিসেবে কাজ করছেন। আপনার বেশ কিছু লেখা বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। তাহলে তারা আপনার স্পেসিফিক স্কিল সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পাবে এবং চাকুরীর দৌড়ে আপনি এগিয়ে থাকবেন।   

জব পোস্টিং এ নির্দিষ্ট কোনো প্রশ্ন থাকে তার উত্তর দিন

নিয়োগকর্তা অনেক সময় তাদের জব পোস্টিং নির্দিষ্ট কিছু প্রশ্ন অন্তর্ভুক্ত করে দেন স্কিল যাচাই এর জন্য। বেশিরভাগ সময় চাকুরিপ্রার্থীগণের মধ্যে কপি পেস্ট করার প্রবণতা দেখা যায়। তাই নিয়োগকর্তা সঠিক প্রার্থী বাছাই করার জন্য এই পন্থা অবলম্বন করে থাকেন। সেক্ষেত্রে আপনি অবশ্যই সেই সকল প্রশ্নের উত্তর সঠিকভাবে দিবেন যাতে আপনি অন্যদের চেয়ে আলাদা প্রমান করতে পারেন।  

সরাসরি জব চাইবেন না 

তার চেয়ে আপনি তাদের জন্য কতখানি ডেডিকেশন দিয়ে কাজ করতে পারবেন সেটা তুলে ধরুন। প্রতি সপ্তাহে আপনি কত ঘন্টা তাদের জন্য কাজ কাজ করতে পারবেন সেটাও আপনার কভার লেটার এ উল্লেখ করুন। 

তাদেরকে বলুন তাদের নির্ধারণ করা যেকোন সময়ে আপনি ইন্টারভিউ দিতে প্রস্তুত আছেন। আপনি আরো আলোচনা করতে আগ্রহী, প্রয়োজনে স্ক্রিন শেয়ার করে তাদের সাথে আপনি ইন্টারভিউ দিতে প্রস্তুত আছেন।    

ফাইনাল চেক করুন

কমুনিকেশনে তো আপনাকে অবসসই দক্ষ হতেই হবে।  তার পরেও এই সেক্টরে যারা অভিজ্ঞ তাদের সাথে আপনার কভার লেটার শেয়ার করে মতামত নিন। তাদের গাইড ফলো করে ফাইনাল সাবমিট করুন। সব সময় নিজেকে আলাদা করার চেষ্টা করুন এবং সেটা অবশ্যই আপনার দক্ষতা ও যোগ্যতা দিয়ে। আর মনে রাখবেন, ভালো একটি কভার লেটার নিয়োগকর্তার উপর ভালো ইম্প্রেশন ফেলে, তাই প্রথম ইম্প্রেশন ফ্রিল্যান্স জব এর জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ন। 

Leave a Reply